সর্বশেষ আপডেট ১৪ ঘন্টা ১৪ মিনিট আগে
আপনি আছেন হোম / শিক্ষা / খবর / মন্ত্রীর আশ্বাস প্রত্যাখ্যান, অনশন অব্যাহত

মন্ত্রীর আশ্বাস প্রত্যাখ্যান, অনশন অব্যাহত

প্রকাশিত: ০২ জানুয়ারি ২০১৮ ১৬:১২ টা

নিজস্ব প্রতিবেদক, অনলাইন বাংলাঃ

বাংলাদেশ সরকার স্বীকৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর এমপিওভুক্তির ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সম্মতি পাওয়া গেছে জানিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষক-কর্মচারীদের আশ্বাস দিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আহ্বান জানালেও তাতে সন্তুষ্ট হতে না পেরে আমরণ অনশন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষক-কর্মচারীরা।

আন্দোলনকারীতে অনশন ভাঙাতে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে যান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

পরে অনশনরত শিক্ষক-কর্মচারীদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অনেক চেষ্টার পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছ থেকে সম্মতি আদায় করতে পেরেছি। তিনি আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন। এমপিওভুক্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেজন্য নীতিমালা করতে হবে।

আন্দোলনে থাকা শিক্ষকরা এসময় 'কবে, কবে' বলে চিৎকার করতে থাকেন। কেউ কেউ এ বছরের শুরু থেকেই এমপিওভুক্তির দাবি কার্যকরের দাবি জানান।

হট্টগোলের এক পর্যায়ে নুরুল ইসলাম বলেন, নীতিমালা করে এমপিওভুক্তির বিষয়টি চূড়ান্ত করার জন্য সময় লাগবে। কিন্তু সম্মতি পাওয়া গেছে এটাই একটি বড় অর্জন।

পরে আন্দোলনরত শিক্ষকদের ঘরে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে ওই এলাকা ত্যাগ করেন শিক্ষামন্ত্রী।

উল্লেখ্য, এমপিওভুক্তির দাবিতে 'নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশন' ব্যানারে গত ২৬ ডিসেম্বর থেকে প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন দেশের বিভিন্ন এলাকার কয়েক হাজার শিক্ষক। গত ৩১ জানুয়ারি সকাল থেকে তারা আমরণ অনশন শুরু করেন।

আমরণ অনশনের দ্বিতীয় দিনে গত ১ জানুয়ারি অসুস্থ হয়ে পড়েন ১৩ জন নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারী। তাদের মধ্যে ছয়জন বিকাল পর্যন্ত হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

আন্দোলনকারী সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন,  দাবি আদায় না হলে ঘরে ফিরে গিয়ে আমাদের না খেয়ে থাকতে হবে। তাই এখানে আমরণ অনশন করে মরে যেতে চাই।

এরপর নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায় বলেন, এমন আশ্বাসের কথা আমরা আগেও অনেকবার শুনেছি। আশ্বাস দেয়া হয়, পরে আর কিছুই করা হয় না।

তিনি বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য আমরা প্রত্যাখ্যান করলাম। মন্ত্রী আমাদের সুনির্দিষ্ট কোনো আশ্বাস দিতে পারেননি। প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আশ্বাস না পাওয়া পর্যন্ত আমরা আমরণ অনশন চালিয়ে যাব।

বাংলাদেশে বর্তমানে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা পাঁচ হাজার ২৪২টি। এসব প্রতিষ্ঠানে এক দশকেরও বেশি সময় থেকে বিনা বেতনে পাঠদান করছেন এমন শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজার।

ছয় বছর বন্ধ থাকার পর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সর্বশেষ ২০১০ সালে আওয়ামী লীগ সরকার এক হাজার ৬২৪টি বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজকে এমপিও ভুক্ত করে।

'তহবিল সঙ্কট' দেখিয়ে তখন বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানকে আর এমপিও ভুক্ত করা হয়নি। বাদ পড়া শিক্ষকরা তখন থেকেই বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন।

প্রসঙ্গত, বেসরকারি যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা সরকারের দেয়া বেতন পান সেসব প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত বলা হয়।

এই পদ্ধতিতে এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের মূল বেতনের ১০০ ভাগ সরকার প্রদান করে। মূল বেতন ছাড়াও নাম মাত্র পরিমাণে হলেও অন্যান্য ভাতা দেয়া হয়।

বিদ্যমান নিয়ম অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে প্রথমে এমপিওভুক্ত করা হয়। এরপর সেসব প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের সরকারি বেতনক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

পাঠক মন্তব্য () টি

অনশন ভাঙলেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা

জাতীয়করণের দাবিপূরণের আশ্বাস পেয়ে অনশন ভেঙেছেন আন্দোলনরত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা।

স্কুলের অবকাঠামো উন্নয়নে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ

সভা শেষে প্রকল্পগুলো নিয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল।

এবার আমরণ অনশনে যাচ্ছেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা

নিবন্ধন পাওয়া সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবিতে মঙ্গলবার থেকে আমরণ অনশনে…

কপিরাইট ২০১৪ onlineBangla.com.bd
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: গুলবুদ্দিন গালীব ইহসান
অনলাইন বাংলা, ৬৯/জি গ্রিন রোড, পান্থপথ (নীচ তলা), ঢাকা-১২০৫।
ফোন: ৯৬৪১১৯৫, মোবাইল: ০১৯১৩৭৮৯৮৯৯
ইমেইল: contact.onlinebangla@gmail.com
Developed By: Uranus BD