সর্বশেষ আপডেট ৮ ঘন্টা ১২ মিনিট আগে
আপনি আছেন হোম / বাংলাদেশ / জাতীয় / আগম নির্বাচনের গুজব উড়িয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

আগম নির্বাচনের গুজব উড়িয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭ ২১:০৬ টা | আপডেট: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭ ২১:২২ টা

নিজস্ব প্রতিবেদক, অনলাইন বাংলাঃ

মন্ত্রিসভার বৈঠকের অনির্ধারিত আলোচনায় আগাম নির্বাচনের বিষয়টি সরাসরি নাকচ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যথাসময়ে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বেলা ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠক শুরু হলে একপর্যায়ে অনির্ধারিত আলোচনায় বাণিজ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা তোফায়েল আহমেদ 'আগাম নির্বাচনরে বিষয়টি' প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

তিনি বলেন, আগাম নির্বাচন নিয়ে কিছুদিন ধরে একটি গুজব চলছে। এসময় জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, আগাম নির্বাচনের প্রশ্ন আসবে কেন? নির্বাচন যথাসময়ে সংবিধান মোতাবেকই হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যথাসময়ে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই নির্বাচনে আমাদের দলের মনোনয়ন যারা পাবেন, তারা অবশ্যই যোগ্যতা ও মাঠপর্যায়ে গ্রহণযোগ্যতার ভিত্তিতেই পাবেন। কোনো ধরনের ইমোশন বা আবেগ এখানে কাজে আসবে না।

সৌদি আরবে দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে বাংলাদেশ থেকেও বিপুলপরিমাণ টাকা পাচার হওয়ার খবর পাওয়া গেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, শুনেছি ওইখানেও বাংলাদেশ থেকে টাকা পাচার হয়েছে। আগের সরকারের আমলের এ টাকা নিয়ে আমাদের দেশের মিডিয়ার তেমন কোনো রিপোর্ট দেখছি না। এ টাকা যদি আমাদের আমলে পাচার হতো তাহলে পত্রিকায় অনেক বড় বড় সংবাদ দেখতাম।

অপর দিকে সাম্প্রতিক কম্বোডিয়া সফর সম্পর্কে দেশের মানুষকে জানাতে বৃহস্পতিবার বিকালে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আগামী নির্বাচনে যদি দেশের মানুষ ভোট দেয় তাহলে আবার সরকার গঠন করবেন তিনি। তবে জনগণ ভোট না দিলেও কিছু করার নেই।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা দেশটাকে স্বাধীন করেছি, স্বাধীনতার চেতনায় বাংলাদেশকে গড়ব। তারপর জনগণের ইচ্ছা কাকে ভোট দেবে। আমি নিজেই তো স্লোগান দিয়েছি যে আমার ভোট আমি দেব যাকে খুশি তাকে দেব। কাজেই ভোট দিলে আছি না দিলে নাই।

দেশ টিভির সাংবাদিক জয় যাদব বলেন, প্রতিবার নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন ধরনের জরিপ করান। এবারও করিয়েছেন। সে জরিপের ফলাফল কী এসেছে তা জানতে চান তিনি। প্রশ্ন করেন, কী পরিমাণ আওয়ামী লীগের এমপি ডেঞ্জার জোনে আছেন?

জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, অন্তত রেড জোনে কেউ নেই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জরিপের মাধ্যমে তিনি দেখেন যে কে কেমন করছেন, কার কেমন গ্রহণযোগ্যতা। তিনি বলেন, ‘কিন্তু সেটা তো পাবলিকলি বলব না। কারো কোনো দুর্বলতা দেখলে তাকে সতর্ক করি। সেটা তো সবার মধ্যে বলব না।

তবে দেশের মানুষ যদি সত্যি উন্নয়ন চায়, তাহলে নিশ্চয়ই আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে বেছে নেবে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার দেশকে উন্নয়নশীল জাতিতে পরিণত করেছে। আগে যেখানে ছিল ভিক্ষুক জাতি, এখন উন্নয়নের রোল মডেল। অন্তত এই জায়গায় বাংলাদেশটাকে নিয়ে আসতে পেরেছি।

এসময় সাংবাদিকদের সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে না লিখলে না কি পত্রিকা চলেই না। পত্রিকা পড়ে তো আর দেশ চালাই না। দেশ চালাই ভালোবেসে। বাবার কাছ থেকে শিখেছি কীভাবে উন্নয়ন করতে হয়। সেভাবেই কাজ করছি।

সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বলেন, ভোটের হাওয়া বইতে শুরু করেছে। মনোনয়নের ব্যাপারে আপনার চিন্তাভাবনা কী?

জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটাই উত্তর, শত ফুল ফুটতে দেন। সবাইকে প্রার্থী হতে দেন। এটা তো সবার রাজনৈতিক অধিকার। শত ফুল ফুটবে। তার মধ্যে সময় আসলে আমরা ভালোটা বেছে নেব। কীভাবে বেছে নেব সেটা সময়ই বলে দেবে।

আগাম নির্বাচন প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পার্লামেন্টারি সিস্টেম অব ইলেকশনে যেকোনো সময় ইলেকশন দেয়া যায়। কিন্তু এমন কোনো দৈন্যদশায় পড়িনি যে আগাম নির্বাচন দিতে হবে।

দেশে চলমান উন্নয়নকাজের প্রসঙ্গ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ না থাকলে তো উন্নয়নকাজ হয় না। আমি চ্যালেঞ্জ দিতে পারি এত অল্প সময়ে কোনো দেশে এত উন্নয়ন কাজ কখনো হয়নি।

সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল জানতে চান, খালেদা জিয়া আদালতে জানিয়েছেন যে তিনি শেখ হাসিনাকে ক্ষমা করেছেন। অথচ সম্প্রতি সৌদি আরবে টাকা পাচারের সাথে খালেদা জিয়ার সম্পৃক্ততা বিষয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে খবর এসেছে। এ ক্ষেত্রে সরকার কি তাকে ক্ষমা করবে?

জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি এমন কী অপরাধ করেছি যে আমি ক্ষমা চাইব? তার উচিত দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাওয়া।

শেখ হাসিনা বলেন, ছবি বিশ্বাসের গাড়িতে আগুন দিল, ২০১৪-১৫ সালে কীভাবে পুড়িয়ে পুড়িয়ে মানুষ মেরেছে। কাজেই ক্ষমাটা ওনার জাতির কাছে চাওয়া উচিত।

বিএনপি-জামায়াত সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, কেন এই টাকা পাচারের খবর তুলে ধরা হলো না?

শেখ হাসিনা বলেন, সৌদিতে যে বিশাল শপিং মল, সম্পদ পাওয়া গেছে। আপনাদের তো এ ব্যাপারে কোনো আগ্রহ দেখি না। এত দুর্বলতা কিসের জন্য?

তিনি বলেন, এই যে মানি লন্ডারিং, এটা যে বিএনপি এবং খালেদা জিয়ার ছেলেরা করেছে এটা তো আমরা বের করিনি। এটা বের করেছে আমেরিকা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেশির ভাগ পত্রিকা কিন্তু আমিই পারমিশন দিয়েছি। সে পত্রিকাগুলোর এতটুকু সাহস হলো না যে খবরটা প্রকাশ করি। কোনো সরকার সাহস পায় নাই, আমি প্রাইভেট চ্যানেলের অনুমোদন দিয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, যাদের এত টাকা তারা জানে কীভাবে মুখ বন্ধ করতে হয়? হতে পারে আপনাদের মুখে কোনো রসগোল্লা ঢুকিয়ে দিয়েছে।

পাঠক মন্তব্য () টি

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

ওয়ান প্ল্যানেট সামিট থেকে তিনদিনের সফর শেষে ফ্রান্স থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী…

এএসপি থেকে এসপি হলেন ৯৬ জন

বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) পদ থেকে ৯৬ জন কর্মকর্তাকে পদোন্নতি…

আপন জুয়েলার্সের ৩ মালিকের জামিন

গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদ জামিনে মুক্ত হতে পারলেও বনানী ধর্ষণ মামলার…

কপিরাইট ২০১৪ onlineBangla.com.bd
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: গুলবুদ্দিন গালীব ইহসান
অনলাইন বাংলা, ৬৯/জি গ্রিন রোড, পান্থপথ (নীচ তলা), ঢাকা-১২০৫।
ফোন: ৯৬৪১১৯৫, মোবাইল: ০১৯১৩৭৮৯৮৯৯
ইমেইল: contact.onlinebangla@gmail.com
Developed By: Uranus BD