সর্বশেষ আপডেট ৪ ঘন্টা ৪৪ মিনিট আগে
আপনি আছেন হোম / বাংলাদেশ / জাতীয় / আমার সাথে যা হয়েছে তা প্রকাশে ভীত নই, অপহরণ সংস্কৃতির সমাপ্তি ঘটাতে হবে: কবি

আমার সাথে যা হয়েছে তা প্রকাশে ভীত নই, অপহরণ সংস্কৃতির সমাপ্তি ঘটাতে হবে: কবি

প্রকাশিত: ১২ জুলাই ২০১৭ ২১:২০ টা | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৭ ২১:৪৮ টা

বার্তা ডেস্ক, অনলাইন বাংলাঃ

কবি ও দার্শনিক ফরহাদ মজহার এখনো মানসিকভাবে ভীষণ বিপর্যস্ত অবস্থায় আছেন। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে তার আরো কিছু সময় লাগবে।

তিনি বলেন, বেশির ভাগ মানুষই গুমের ঘটনা থেকে ফিরে আসার পর রহস্যজনকভাবে নীরব হয়ে যায়। কিন্তু আমার সাথে যা হয়েছে তা প্রকাশ করতে আমি ভীত নই। আমি যখন কাজে ফিরব তখন এই বিষয় নিয়ে কাজ করব। আমাদের এই অপহরণ করার সংস্কৃতির সমাপ্তি ঘটাতে হবে।

বুধবার রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় যুক্তরাজ্যভিত্তিক গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কবি ফরহাদ মজহার এসব কথা বলেন।

অপহরণের ঘটনার পর এই প্রথম তিনি কোনো বিদেশি গণমাধ্যমের সাথে কথা বললেন।

ফরহাদ মজহার বলেন, গত সপ্তাহে ভোর ৫টার দিকে আমাকে কে বা কারা বাড়ির সামনের রাস্তা থেকে তুলে নেয় তা আমি বুঝতে পারেননি। সেদিন সকালে আমার চোখে সমস্যা হচ্ছিল, তাই ওষুধ কিনতে বাড়ি থেকে বের হয়েছিলাম।

তিনি আরো বলেন, হঠাৎ তিনজন ব্যক্তি আমার পাশে এসে উপস্থিত হয় এবং একটি সাদা মিনিবাসে আমাকে তুলে নেয়।

ফরহাদ মজহার বলেন, এসময় আমি পকেট থেকে মোবাইল ফোনটি বের করার সুযোগ পেয়ে আমার স্ত্রীকে ফোন করি। এটা ছিল একটা ছোট্ট ফোনকল।
তিনি বলেন, আমি ফিসফিস করে বললাম, ওরা আমাকে নিয়ে যাচ্ছে। ওরা আমাকে মেরে ফেলবে। অপহরণকারীরা বুঝে ওঠার আগেই আমি কয়েক সেকেন্ডের জন্য আমার স্ত্রীর সাথে কথা বলতে পারি।

ফরহাদ মজহার বলেন, এরপর ওই ব্যক্তিরা আমার চোখ বেঁধে ফেলে এবং মোবাইল ফোন নিয়ে নেয়। এসময় আমি অপহরণকারীদের মুক্তিপণও দিতে চাইলে তারা আমাকে ফোন ব্যবহার করতে দেয় এবং কয়েকবার আমি আমার স্ত্রীর সাথে কথা বলি।

কবি বলেন, ঘণ্টার পর ঘণ্টা মিনিবাসটি চলতে থাকে। তারা আমাকে অপমান করে, মাঝেমধ্যে আমাকে উদ্দেশ্য করে গালাগাল করতে থাকে। তারা আমাকে চড়ও মারে। হাটু দিয়ে মিনিবাসের মেঝেতে আমাকে ধরে রাখে।

ফরহাদ মজহার বলেন, ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা পর অপহরণকারীরা আমাকে জানায় তারা আমাকে মুক্ত করে দেবে। এরপর তারা একটি নির্জন ও কিছুটা অন্ধকার স্থানে আমার চোখ খুলে দিয়ে চলে যায়।

তিনি আরো বলেন, তারা আমাকে একটি বাসের টিকেট দেয় এবং বলে খুলনা শহর থেকে বাসে চেপে ঢাকায় ফিরে যেতে। আমি কিছু দূর হাঁটি এবং খুলনার একটি বিপণিবিতানে পৌঁছাই, যেখানে রাত সোয়া ৯টার বাসে ওঠার আগে আমি কিছু খাবার খাই।

ফরহাদ মজহার বলেন, কারা আমাকে অপহরণ করেছিল সে সম্পর্কে আমার কোনো ধারণা নেই। আমার অপহরণকারীরা সাধারণ পোশাকে ছিল। আমি জানি না তারা কারা বা কোন দলের সদস্য।

তিনি বলেন, বন্দি অবস্থায় আমি বেশ কয়েকবার আমার স্ত্রীর সাথে ফোনে কথা বলেছি। আমাকে বহনকারী মাইক্রোবাসটি ঢাকা ছেড়ে আসার পর পুলিশ চাইলে আমার অবস্থান শনাক্ত করতে পারত। আমি অবাক হয়েছি যে কেন পুলিশ খুলনা পৌঁছার আগেই মাইক্রোবাসটিকে আটক করতে পারল না।

ফরহাদ মজহার বলেন, এখনো আমি মানসিকভাবে ভীষণ বিপর্যস্ত অবস্থায় আছি। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে আরো কিছু সময় লাগবে।

এই দার্শনিক বলেন, বেশির ভাগ মানুষই গুমের ঘটনা থেকে ফিরে আসার পর রহস্যজনকভাবে নীরব হয়ে যায়। কিন্তু আমার সাথে যা হয়েছে তা প্রকাশ করতে আমি ভীত নই। আমি যখন কাজে ফিরব তখন এই বিষয় নিয়ে কাজ করব। আমাদের এই অপহরণ করার সংস্কৃতির সমাপ্তি ঘটাতে হবে।

গত ৩ জুলাই ভোর ৫টায় শ্যামলীর নিজ বাসা থেকে বের হন কবি ও দার্শনিক ফরহাদ মজহার। এরপর পরিবার থেকে থানায় অভিযোগ করা হয় তিনি অপহরণের শিকার হয়েছেন।

পরে ১৮ ঘণ্টা পর যশোরের অভয়নগর থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাকে একটি বাস থেকে উদ্ধার করে।

ফরহাদ মজহার জবানবন্দিতে বলেছেন, তিনি অপহরণের শিকার হয়েছিলেন। তাকে একটি মাইক্রোবাসে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা তুলে নিয়ে যান।

গত ৮ জুলাই পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক বলেছিলেন, ফরহাদ মজহার সম্ভবত অপহরণের স্বীকার হননি।

এছাড়া আজ কবি ও দার্শনিক ফরহাদ মজহারের জবানবন্দির সাথে পুলিশের প্রাপ্ত তথ্যের মিল নেই বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

পাঠক মন্তব্য () টি

জেল খাটার ভয়ে খালেদা জিয়া পালিয়ে বেড়াচ্ছেন: মোশাররফ

তারেক জিয়া দেশ ছেড়ে পালিয়ে বিদেশে গিয়ে আমাদের দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার…

শৈলকুপায় বজ্রপাতে নিহত ২

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার হরিহরা গ্রামে বজ্রপাতে দুইজন নিহত হয়েছেন। এসময় একজন গুরুতর…

ইউএনও গ্রেপ্তারের ঘটনায় বিস্মিত প্রধানমন্ত্রী, প্রশাসনে ক্ষোভ

ছবিটিতে বিকৃত করার মতো কিছু করা হয়নি। এটি রীতিমত পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য।…

কপিরাইট ২০১৪ onlineBangla.com.bd
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: গুলবুদ্দিন গালীব ইহসান
অনলাইন বাংলা, ৬৯/জি গ্রিন রোড, পান্থপথ (নীচ তলা), ঢাকা-১২০৫।
ফোন: ৯৬৪১১৯৫, মোবাইল: ০১৯১৩৭৮৯৮৯৯
ইমেইল: contact.onlinebangla@gmail.com
Developed By: Uranus BD