সর্বশেষ আপডেট ২ দিন ১৬ ঘন্টা ২৩ মিনিট আগে
আপনি আছেন হোম / মতামত / কলাম / আবেগী গোলামদের টিস্যু দাও প্লিজ

আবেগী গোলামদের টিস্যু দাও প্লিজ

প্রকাশিত: ২৮ জানুয়ারি ২০১৭ ১২:৩০ টা | আপডেট: ২৮ জানুয়ারি ২০১৭ ১৩:০০ টা

এটিএম গোলাম কিবরিয়াঃ

গোলামেরা একটু বেশীই আবেগপ্রবন হয়। শেখ মুজিবের সাথে হাত মিলাইছে জীবনে একবার, শুধু এই কারণেই অনেকে সারাজীবন আওয়ামী লীগ করে। শেখ সাহেব বলতে বলতে ফোঁপাইয়া উঠে। হাত না ধুইয়া থাকে যতদিন পারে।

আমার এক শিক্ষক ছিলেন, খুব প্রিয় শিক্ষক। প্রেসিডেন্ট জিয়া বলার সময় মুখ নিচু করে ফেলতেন, সম্ভ্রমে। জিয়া খুব জোরে হাঁটতেন, তিনি দেখছেন। টিভিতে। তার মানে খুব কর্মী লোক নিশ্চয়ই। একজন আর্মি অফিসার জোরে জোরে হাঁটেন, মাঝে মাঝে কোদাল হাতে নিয়া মাটি কাটেন। কান্দন সামলানো দায়। আর্মি মানেই তো বুটের লাথি , অথচ দেখো দেখো কতটুকু মাটির মানুষ, মাটি ও কাটে।

এরশাদ শাহীর যখন মধুচন্দ্রিমা চলতেছিলো, তখনো এইরকম আবেগী মানুষ দেখা যাইতো প্রচুর। বন্যার পানিতে এরশাদ, কবি এরশাদ, কত রূপ তার!

খালেদা জিয়ার একটা জিনিষ ভালো, স্ট্রেইটকাট। গোলামদের তিনি গোলামই মনে করেন। মহারাণীর মতন "চুপ কর বেয়াদব" বইলা উঠেন। বাংলাদেশের অবৈধ প্রধানমন্ত্রী যেদিন ভ্যানে চইড়া ভ্যানতারা করতেছেন, সেদিন ভারতীয় ময়লা কয়লা বিক্রির ধান্ধার বিরুদ্ধে মিছিলে মানুষ পেটাইতেছে তার পুলিশ।

গোলামেরা একটু আদেখলা হয়, ফ্যাঁচফ্যাঁচে হয়, অল্পতেই চোখে পানি চইলা আসে তাদের। আমার রুমমেট যখন দেশে স্কাইপেতে কথা বলতো মাঝে মাঝে তার পরিবারের পাশে একজন আইসা দাঁড়াইতো, তাদের গ্রামের বাড়ির লোক। আত্মীয় না, ঘরে থাকে আর ফাইফরমাশ খাটে। ভাইয়ার অস্ট্রেলিয়া জীবন নিয়া তার উচ্ছ্বাস ছিলো দেখার মত। রুমমেট যখন দেশে যায় আমি তারে মনে করায়া দিছিলাম ওই পোলার জন্য ও কিছু চকলেট নিয়া যাইতে। তার মনে ছিলোনা ওই পোলার কথা।

বাংলাদেশের বিয়া শাদিতে দেখবেন এইরকম লোকেদের। ভাইয়া কিংবা আপুর বিয়ার তদারকিতে তারা জান কাবার কইরা দেয়, পরে খাওয়া যখন শর্ট পরে, তারা না খাইয়া থাকে। পরে পাত্র কিংবা পাত্রীর বাবা আইসা যখন একটা মমতার দৃষ্টি থ্রো করে, খালুর ওই দৃষ্টিতে তারা ভুইলা যায় যে তারা খায় নাই।

বড়লোকের গরীব আত্মীয় হওয়াটা দোষের কিছু না, কিন্তু এইটাকে সেলিব্রেট করা, শেকলকে অলঙ্কার ভাবার বলদামী। বিশেষত সেইটা যখন আপনি করেন। তথাকথিত শিক্ষিত, পড়ালেখা করা ডিগ্রিবিশিষ্ট মধ্যবিত্ত।

আপনার বাপ দাদারা না হয় গোলাম ছিলো ভিক্টোরিয়ার, আইয়ুবের। তারা সামন্ত প্রভু ও মিলিটারি ডান্ডারে ভয় পায়, ফলে বাধ্যতামূলক ভক্ত এবং মর্ষকামী। আপনি তো না। আপনি তো স্বাধীন দেশের নাগরিক। শেখ হাসিনা ভ্যানে চড়ছেন, তাতে আপনার কি? তার সাথে আপনার বোঝাপড়া তার রাজনৈতিকতা নিয়া। তিনি কি আপনারে সুশাসন দিচ্ছেন? গুম বন্ধ করতেছেন? ভোট দিতে দিচ্ছেন? না, দিতেছেন না।

তার আপনারে সার্ভ করার কথা, আপনার না। তিনি কাজ করবেন আপনার জীবনমানের উন্নয়নের জন্য, পাঁচ বছর পরে পরীক্ষা দিবেন। আপনি এক্সামিনার। তিনি পরীক্ষার্থী। এই দেশে উল্টাটা হয়। আমাদের কালচারাল ডিএনএতে গোলামীর জিন ডমিন্যান্ট, এই কারণে এমন হয়।

গণতন্ত্র একটা প্রক্রিয়া, চলমান প্রক্রিয়া। জবাবদিহিতা এইখানে মাস্ট। শুরু হবে একদম বেসিক জিনিষ, নির্বাচন দিয়া। প্রতিষ্ঠান স্বাধীন থাকবে। আজাইরা আনুগত্য থাকবেনা। নেতা সবসময়েই জবাবদিহিতার আন্ডারে থাকবে। প্রশ্ন করা, পেইন দেয়া, অবিশ্বাস করা গণতান্ত্রিকতার পূর্বশর্ত। নাইলে সেইটা টাইর‍্যানিতে রুপান্তরিত হবে, বাংলাদেশে যেমন হয়।

সারাদিন যে আহমদেনিজাদের আর পশ্চিমা মন্ত্রীদের পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ব্যাবহার করার ছবি দেন, তারা কিন্তু এইটারে বিজনেস এজ ইউজুয়াল হিসেবেই নেয়। এমনই হওয়ার কথা। তাদের চোখের পানি আসেনা এইসব ছবি দেখলে। গোলামের ভক্তি বেশী, এইটা তার ভয়ের মলম। এইজন্য এইখানকার মিথে রাজা বনবাসে গেলে, তার পাদুকা রাইখা দেশ চালানো হয়। তাজউদ্দিনের প্রধান গুণ ধরা হয় তার লয়ালটিরে। ভক্তিরসে জবজবা আমাদের সাহিত্য পর্যন্ত।

এত রস দেইখা মাঝে মাঝে শরীর ঘিনঘিন করে। ভারতবর্ষ ছাড়া পৃথিবীর কোথাও এইরকম তেলতেলে মধ্যবিত্ত পাওয়া মুশকিল। আপনি কি এতই ফ্যালনা? আপনি না মানুষ?

বড়লোকের সাথে, ক্ষমতাবানের সাথে কোন না কোনভাবে সম্পর্কিত হওয়ার গর্দভসুলভ অহংকার কি আদতে আপনারে বড় করে কোনভাবে? খ্যাতিমানের পাশে, কীর্তিমানের পাশে গিয়া যখন সেলফি তুলেন কি মনে হয় আপনার, আপনারে কি বিখ্যাত লাগে নাকি আরেকটু বেশী অখ্যাত লাগে?

পাঠক মন্তব্য () টি

ইসলাম ও সেক্যুলারিজমের সম্পর্ক প্রসঙ্গে

'সেক্যুলারিজম এবং ধর্ম ও রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক বিষয়ে তিউনেসীয় নেতা অধ্যাপক রশিদ…

দুর্লভ সাঁইজির বয়ানে লালন সাঁইজি

ছেলেটি কথা বললো। কোরানে ভুল উচ্চারণ বিষয়ে বললো। মলম শাহ তো হতবাক।

বঙ্গোপসাগরের নামকরণ এবং কিছু প্রাসঙ্গিক আলোচনা

বঙ্গোপসাগরকে উপসাগরের পরিবর্তে সাগর হিসেবে বিবেচনার অবকাশ রয়েছে।

কপিরাইট ২০১৪ onlineBangla.com.bd
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: গুলবুদ্দিন গালীব ইহসান
অনলাইন বাংলা, ৬৯/জি গ্রিন রোড, পান্থপথ (নীচ তলা), ঢাকা-১২০৫।
ফোন: ৯৬৪১১৯৫, মোবাইল: ০১৯১৩৭৮৯৮৯৯
ইমেইল: contact.onlinebangla@gmail.com
Developed By: Uranus BD