সর্বশেষ আপডেট ২৯ দিন ২ ঘন্টা ৪৯ মিনিট আগে
আপনি আছেন হোম / অর্থনীতি / দুর্নীতি / রিজার্ভ চুরিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৫ জন

রিজার্ভ চুরিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৫ জন

প্রকাশিত: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৬ ২০:২৬ টা | আপডেট: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৬ ২১:১৭ টা

বার্তা ডেস্ক, অনলাইন বাংলাঃ

নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ থেকে বাংলাদেশের রিজার্ভের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরির ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের পাঁচ কর্মকর্তার পরোক্ষ সম্পৃক্ততার প্রমাণ পেয়েছে একটি তদন্ত কমিটি।

গত ফেব্রুয়ারিতে চুরির পর ঘটনাটি শুরুতে আড়াল করার চেষ্টা করা হয়। পরে ফিলিপাইনের একটি সংবাদপত্রের মাধ্যমে ঘটনাটি জানাজানি হলেবাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

বৃহস্পতিবার ফরাসউদ্দিনের বরাতে বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, রিজার্ভ চুরির ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের নিম্ন ও মধ্য পর্যায়ের পাঁচ কর্মকর্তাদের অবহেলা পাওয়া গেলেও তারা এই অপরাধে সরাসরি জড়িত ছিলেন না।

নিজ কার্যালয়ে এক সাক্ষাৎকারে ফরাসউদ্দিন বলেন, 'তাদের অবহেলা, অসতর্কতা ও পরোক্ষ সহযোগিতা ছিল। কমিটি এই সিদ্ধান্তে পৌঁছায় যে, এই চুরির পেছনে ছিল বাইরের কেউ।' তবে তিনি ওই কর্মকর্তাদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করেননি।

এদিকে বেসরকারি এনটিভি অনলাইনকে রিজার্ভ চুরির ঘটনায় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তদন্তদলের প্রধান শাহ আলম বলেছেন, ভেতরকার ও বাইরের চক্র বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরিতে সহায়তা করেছে।

তিনি বলেন, ভেতরকার চক্রটি রিজার্ভের নিরাপত্তাব্যবস্থাকে ধীরে ধীরে দুর্বল করেছে। এর ফলে চুরি করা সহজ হয়েছে হ্যাকারদের।

শাহ আলম বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে তদন্তে আমরা যেটা দেখেছি, কিছু ব্যক্তি, দেশি-বিদেশি ব্যক্তির, সুনির্দিষ্ট কিছু পদক্ষেপের ফলে সুরক্ষিত সিস্টেমটা (ব্যবস্থা) স্টেপ বাই স্টেপ (ধাপে ধাপে) অরক্ষিত হয়েছে এবং অরক্ষিত করার ফলশ্রুতিতেই, মূল হোতা যারা হ্যাকিংটা করেছিলেন, (তাদের) হ্যাকিং করাটা সহজ হয়েছে। সুযোগ তৈরি হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের তদন্তে আমরা যেটা বুঝেছি, আমরা যেটা পেয়েছি যে, মূল হোতারা কিছু টেকনিক্যাল হ্যাকারকে দিয়ে হ্যাক করানোর আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুরক্ষিত সিস্টেমটাকে অরক্ষিত করতে হয়েছে তাদের। বাংলাদেশ ব্যাংকের ভেতরের এবং বাইরের দুই রকমের লোকই আছেন।

প্রসঙ্গত, ফরাসউদ্দিনের কমিটি গত মে মাসে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তবে তা প্রকাশ করেনি সরকার। কয়েক দফায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত প্রতিবেদন প্রকাশের ঘোষণা দিলেও শেষ পর্যন্ত তার আর প্রকাশ করা হয়নি।

এটি জনসম্মুখে প্রকাশের পক্ষে  যুক্তি তুলে ধরে ফরাসউদ্দিন রয়টার্সকে বলেছেন, 'সরকার যদি এটা প্রকাশ করে তাহলে বাংলাদেশ ব্যাংকের অবস্থান আরও শক্তিশালী হবে।'

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সম্প্রতি এই প্রতিবেদন ফিলিপিন্স সরকারকে দেয়ার কথা বলেছেন।

গত ফেব্রুয়ারিতে সুইফট সিস্টেমে ভুয়া পরিশোধ অর্ডার পাঠিয়ে নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রায় ১০ কোটি ডলার সরিয়ে নেয় হ্যাকাররা।

এর মধ্যে ৮ কোটি ১০ লাখ ফিলিপিন্সের রিজল কর্মশিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশন- আরসিবিসির একটি শাখা হয়ে জুয়ার বাজারে চলে যায়।

পরে ফিলিপিন্সের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এজন্য রিজল ব্যাংককে ২০ কোটি ডলার জরিমানা করে। জরিমানার অর্থ পরিশোধ করলেও বাংলাদেশের অর্থ ফেরত দিতে কিংবা দায় নিতে নারাজ আরসিবিসি।

পাঠক মন্তব্য () টি

বাংলাদেশ ব্যাংকের জিএমসহ গ্রেপ্তার ২

দুদকের মামলায় বাংলাদেশ ব্যাংকের জিএম বদরুলসহ দু'জন গ্রেপ্তার।

শেয়ার কেলেঙ্কারির মামলায় শামীম বেকসুর খালাস

শেয়ার বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য অভিযুক্ত সাত্তারুজ্জামান শামীমকে…

আমরা টেকনোলজিস ৮ জিবি ব্যান্ডউইথের হিসাব দিচ্ছে না

আমরা টেকনোলজিসের বিরুদ্ধে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার অভিযোগ উঠেছে

কপিরাইট ২০১৪ onlineBangla.com.bd
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: গুলবুদ্দিন গালীব ইহসান
অনলাইন বাংলা, ৬৯/জি গ্রিন রোড, পান্থপথ (নীচ তলা), ঢাকা-১২০৫।
ফোন: ৯৬৪১১৯৫, মোবাইল: ০১৯১৩৭৮৯৮৯৯
ইমেইল: contact.onlinebangla@gmail.com
Developed By: Uranus BD